বাংলাদেশ ০৩:৪৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মনোযোগ প্রকাশ এর জন্য করনীয়!

  • আপডেট সময় : ১২:৩০:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০২৩
  • / 121

 

শান্ত একটি জায়গা খুঁজে নিন: সকালের দিকে অনেকেই বাইরে ধ্যানের জন্য বের হন। সেজন্য শান্ত, নিরিবিলি জায়গা খুঁজে বের করে আনুন। মনোযোগ বাড়ানোর জন্য প্রকৃতি বা শান্ত বাতাস আছে এমন জায়গা বাছাই করুন।

রুটিন মেনে চলুন: নির্দিষ্ট কাজের জন্য একটা রুটিন করে নিন। অভ্যাস হয়ে গেলে মনোযোগ বাড়ে। এই রুটিন মেনে চললে ওই সময়ে অনুশীলনের জন্য মন প্রস্তুত থাকবে সবসময়। ঘন্টার পর ঘন্টা না কাজ করে মাঝে যদি কিছুক্ষণ ব্রেক নেওয়া যায়, তাহলে কার্যাবলির ব্যাপার নিয়ে একঘেয়েমি কাজ করবে না।

আরামদায়ক পরিবেশ: পড়াশোনা করার জন্য একটি শান্ত অথবা আরামদায়ক জায়গার ব্যবস্থা করে দিন। এমন একটি জায়গায় তার পড়াশোনার ব্যবস্থা করুন যেখানে বারবার বাইরের লোক যাওয়া আসা করবে না এবং কোন মোবইল বা অন্যান্য ডিভাইস থাকবে না। এছাড়া হাতের কাছে পেন্সিল, রাবার, স্কেল, কল ইত্যাদি নিয়ে বসতে হবে যার জন্য বারবার তাকে উঠতে হবে না। যদি খিদে পায় তাহলে হাতের কাছে বিস্কুট চানাচুর টেবিলে রেখে দেওয়া যায়।

চিন্তামুক্ত থাকা: নিজেকে বেশি সময় দিন এবং নিজের মনোবল বৃদ্ধি করুন। মানসিকভাবে নিজেকে সবসময় প্রশান্তি দিন। আপনার সমস্যাগুলো একটি নির্দিষ্ট ছকের মাধ্যমে সমাধান করার চেষ্টা করুন।

নিয়মিত খেলাধুলা: প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা ছোটাছুটি করে খেলার জন্য বরাদ্দ করতে হবে। এতে ঘাম ঝরবে। ফলে শরীরে এনডরফিন বেশি পরিমাণে নি:সৃত হতে থাকে। এর পরেই বাচ্চাকে পড়াতে বসালে প্রথম ঘণ্টাখানেকের পড়ায় তার পুরো মনোযোগ থাকবে।

স্বাস্থ্যের দিকে দৃষ্টি : শারীরিক অসুস্থতা থাকলে লেখাপড়ায় মনোযোগ দেওয়া যায় না, তাই স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে হবে। শরীর সুস্থ থাকলে যেকোনো কাজে আনন্দ পাওয়া যায়।

ঢাকা, ১৭ জুলাই (মনোযোগ প্রকাশ.কম)//এমজেড 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

মনোযোগ প্রকাশ এর জন্য করনীয়!

আপডেট সময় : ১২:৩০:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০২৩

 

শান্ত একটি জায়গা খুঁজে নিন: সকালের দিকে অনেকেই বাইরে ধ্যানের জন্য বের হন। সেজন্য শান্ত, নিরিবিলি জায়গা খুঁজে বের করে আনুন। মনোযোগ বাড়ানোর জন্য প্রকৃতি বা শান্ত বাতাস আছে এমন জায়গা বাছাই করুন।

রুটিন মেনে চলুন: নির্দিষ্ট কাজের জন্য একটা রুটিন করে নিন। অভ্যাস হয়ে গেলে মনোযোগ বাড়ে। এই রুটিন মেনে চললে ওই সময়ে অনুশীলনের জন্য মন প্রস্তুত থাকবে সবসময়। ঘন্টার পর ঘন্টা না কাজ করে মাঝে যদি কিছুক্ষণ ব্রেক নেওয়া যায়, তাহলে কার্যাবলির ব্যাপার নিয়ে একঘেয়েমি কাজ করবে না।

আরামদায়ক পরিবেশ: পড়াশোনা করার জন্য একটি শান্ত অথবা আরামদায়ক জায়গার ব্যবস্থা করে দিন। এমন একটি জায়গায় তার পড়াশোনার ব্যবস্থা করুন যেখানে বারবার বাইরের লোক যাওয়া আসা করবে না এবং কোন মোবইল বা অন্যান্য ডিভাইস থাকবে না। এছাড়া হাতের কাছে পেন্সিল, রাবার, স্কেল, কল ইত্যাদি নিয়ে বসতে হবে যার জন্য বারবার তাকে উঠতে হবে না। যদি খিদে পায় তাহলে হাতের কাছে বিস্কুট চানাচুর টেবিলে রেখে দেওয়া যায়।

চিন্তামুক্ত থাকা: নিজেকে বেশি সময় দিন এবং নিজের মনোবল বৃদ্ধি করুন। মানসিকভাবে নিজেকে সবসময় প্রশান্তি দিন। আপনার সমস্যাগুলো একটি নির্দিষ্ট ছকের মাধ্যমে সমাধান করার চেষ্টা করুন।

নিয়মিত খেলাধুলা: প্রতিদিন অন্তত এক ঘণ্টা ছোটাছুটি করে খেলার জন্য বরাদ্দ করতে হবে। এতে ঘাম ঝরবে। ফলে শরীরে এনডরফিন বেশি পরিমাণে নি:সৃত হতে থাকে। এর পরেই বাচ্চাকে পড়াতে বসালে প্রথম ঘণ্টাখানেকের পড়ায় তার পুরো মনোযোগ থাকবে।

স্বাস্থ্যের দিকে দৃষ্টি : শারীরিক অসুস্থতা থাকলে লেখাপড়ায় মনোযোগ দেওয়া যায় না, তাই স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে হবে। শরীর সুস্থ থাকলে যেকোনো কাজে আনন্দ পাওয়া যায়।

ঢাকা, ১৭ জুলাই (মনোযোগ প্রকাশ.কম)//এমজেড